Thursday , June 21 2018
Breaking News

উহুদের যুদ্ধে রাসুলের (সাঃ) মৃত্যুর মিথ্যা সংবাদে যুদ্ধের ময়দানে হন্য হয়ে ছুটলেন এক নারী! ঘটনাটি পড়ুন

উহুদের যুদ্ধে রাসুলের (সাঃ) মৃত্যুর মিথ্যা সংবাদে যুদ্ধের ময়দানে হন্য হয়ে ছুটলেন এক নারী! ঘটনাটি জানলে বুঝবে নবীর প্রতি তার কতটা ভালোবাশা ছিলো
উহুদের যুদ্ধে রাসুলের (সাঃ) মৃত্যুর মিথ্যা সংবাদে যুদ্ধের ময়দানে হন্য হয়ে ছুটলেন এক নারী! তার শুধু রাসুলের চিন্তা! অথচ ঐ যুদ্ধে তার পরিবার নিহত হন। উহুদের যুদ্ধে রাসূলের (সা) বহু প্রিয় সাথী নিহত হয়েছিলেন। সত্যের জন্য অকুন্ঠিত চিত্তে তাঁরা তাদের প্রাণ উতসর্গ করে দিয়েছেন। শাহসের সাথে লড়াই কর সত্যের জন্য জীবন দিয়েছেন। সত্যের আহবান তাঁদের উদ্বুদ্ধ করেছে আম্লান বদনে সকল দুঃখ কষ্ট সহ্য করে প্রাণের শিখা অনির্বাণ জ্বালিয়ে রাখতে। মৃত্যু তাঁদের অমর লোকের সঙ্গীত শুনায়। এ সঙ্গীতে সত্যের পরম আনন্দ তাঁরা লাভ করে।

শত বিপদ আপদ শত মৃত্যু পার হয়ে তাঁরা লাভ করেন জীবনের পূর্ণতা। উহুদের যুদ্ধ নবীন মুসলিমদের এই সুযোগ দান করেছিল, মৃত্যুকে বরণ করে আমৃতকে তাঁরা লাভ করেছিলেন। সে এক চরম পরীক্ষার দিন। সংবাদ রটে গেল, এই যুদ্ধে রাসূলুল্লাহ (সা) শহীদ হয়েছেন। কিন্তু তাঁকে সেদিন তাঁর প্রিয় আনুচরগণ মানব প্রাচীর তুলে রক্ষা করেছিলেন।

​রাসূলের (সা) মিথ্যা মৃতু সংবাদে একজন আনসার মহিলা ছুটে চললো মাঠের দিকে। এক জন লোককে দেখে সে জিজ্ঞেস করলো, “রাসূল কি অবস্থায় আছেন?” লোকটিতো জানেই রাসূল নিরাপদে আছেন, তাই প্রশ্নের দিকে খেয়াল না করে সে বললো “তোমার পিতা শহীদ হয়েছেন।”

মুহূর্তে বিবর্ণ হয়ে উঠলো তাঁর মুখ। নিজেকে সংযত করে মহিলাটি আবার জিজ্ঞাসা করল, রাসূল কেমন আছেন, তিনি কি জীবিত? কিন্তু উত্তরে সেই লোকটি বললো “তোমার ভাইও নিহত হয়েছে।

​মহিলাটি আবারও ব্যাকুল কন্ঠে সেই একই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করলেন। কিন্তু লোকটি পূর্বের ন্যায় আবার বললো, “তোমার স্বামীও শহীদ হয়েছেন।

মহিলাটি এবার সকল শক্তি একত্রিত করে তিক্ত কন্ঠে কিছুটা ধমকের সুরেই বলল, “আমার কোন পরমাত্মীয় মারা গেছে কি যায়নি তা আমি জিজ্ঞাস করছিনে বা তা আমি জানতেও আসিনাই, আমাকে শুধু বল আল্লাহর নবী মুহাম্মাদ কেমন আছেন? তিনি কি সুস্থ আছেন? তাকে নিয়ে উলটা পালটা খব্র বের হয়েছে, আমি তাকি নিয়ে খুব শঙ্কায় আছি, দয়া করে আমাকে তার খবরটা বলো
লোকটি উত্তর দিলেন,“তিনি নিরাপদেই আছেন।” মুহূর্তে মহিলাটির বিবর্ণ মুখে আনন্দের আভাস দেখা দিল। উল্লাসিত হয়ে সে বললো, আত্মীয় বন্ধুদের প্রাণ তবে ব্যর্থ হয়নি।

​ব্যর্থ হয় না। কোন দিনই ব্যর্থ হয় না। একটি প্রাণের একটি পবিত্র জীবনের আত্মাহুতি সত্যের আলোক শিখা, সত্যের উদাত্তবাণীকে আরও তীব্রতর আরও জ্যোতির্ময় করে তোলে। মৃত্যু ভয় যাদের নেই, সাহস ও অটল বিশ্বাস যাদের বুকে, তাদের জয় সুনিশ্চিত।

ইসলামের প্রাথমিক যুগে একদল বিশ্বাসী ও নির্ভীক মুসলমান সকল বাধা-বিপত্তি ও মৃত্যু ভয়কে তুচ্ছ করেছিল বলেই ইসলামের প্রতিষ্ঠা সুদৃঢ় হয়েছে। আশার বাণী, শান্তির বাণী প্রচারিত হয়েছে। আটলান্টিক থেকে প্রশান্ত মহাসাগরের বক্ষদেশ পর্যন্ত এর প্রতিষ্ঠার বুনিয়াদ গড়ে উঠেছে শহীদী রক্তের পুণ্য স্রোতধারার উপর। ইসলাম একটি অজেয় শক্তি। অন্যায়, অন্ধকার ও অন্ধ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে এক তীব্র প্রতিবাদ।

Facebook Comments